Arsenic – Scene 4 : The Proposal

Scene 4Inside of Maryanne Cottage. Evening. Kishenlal and his wife are going about setting up the table for lunch and gossiping.

Jashodha: আজ কতজনের টেবিল বসাব ?

Kishenlal: (একটু ভেবে) তিনজনের করলেই চলবে। পরে আমরা আলাদা করে অল্প রুটি সবজি খেয়ে নেব।

Jashodha: তিন জনের কেন ? জেমস সাহেব কি আজ দুপুরে আসবেন নাকি ?

Kishenlal: আগ্নেস বিটিয়া তো তাই বলল। আমার কি মনে হয় জান?

Jashodha: কি মনে হয় তোমার ?

Kishenlal: না বলব না – বললে নজর লেগে যাবে।

Gulabi enters from side stage unnoticed by Kishenlal and Jasodha.

Jashodha: আরে বলই না – আমার থেকে এ বুড়ো বয়েসে আর কি লোকাবে।

Kishenlal: জেমস সাহেব টানা এক মাস রোজ এবারিতে আসছে। আগ্নেস বিটিয়াকে এত হাস্তে আমি অনেক বছর দেখি নি।

Jashodha: হ্যা – ওরা দুজনে ঘন্টার পর ঘন্টা কি এত গল্প করে – ওদের কথা কি ফোরায় না।

Kishenlal: কি যে বল – ফরাবে কেন – এই তো শবে শুরু। মনে আছে খেতের পাসে গাছতলার ছায়াতে বসে, তুমি আমার খাবার এনে দিতে, আর আমরা বসে গল্প করতাম।

Jashodha: হ্যা আর কথা বলতে বলতে তুমি খেতের কাজ ভুলে জেতে – তখন তোমার বুয়াজি তোমাকে ডাটত।

Kishenlal: মনে হয় এক জুগ আগে – আমরা কত বুড়ো হয় গেছি রে দুখিয়ার মা।

Jashodha: তারপর তিন বছর খরা – জমি বেচে শহরে চলে আসতে হল আমাদের।

Kishenlal: তিরিশ বছর এ বাড়িতে আছি – ক্রফরড সাহেব তো উপরে চলে গেলেন – আমারা গেলে আগ্নেস বিটিয়ার কি হবে জানি না। তাই ভাবি যদি এই সাহেবটার সাথে … জানিস দুখিয়ার মা কাল ওদের দুজনকে শুনলাম দরজা বন্ধ করে মেমসাহেবের কবিতা পরছে।

Jashodha: তাই নাকি – তুমি শুনছিলে বুঝি।

Kishenlal: আমি শুনব কেন – তবে দেখি কি জানিস – দেখি গুলাবী দরজার পাসে আরি পেতে শুনছে।

Jashodha: তাই নাকি – তুমি কি করলে?

Kishenlal: কি আর করব – বললাম এই গুলাবী কি করছিস – তা কে কার কথা শনে – ওই মেয়েটা নিজেকে পাটরানী মানতে লেগেছে। আমার সাথে আর ঠিক করে কথাই বলে না।

Jashodha: ওই মেয়ের নাম আমার সামনে কর না – আমার মুখ থেকে গালি বেরিয়ে যাবে।

Kishenlal: কি ব্যাপার – কিছু বলেছে নাকি ?

Jashodha: বলবে কেন – আমি নিজের চোখে দেখেছি, ওকে আমি আগ্নেসের চুরি হাতে পরতে দেখেছি। যখন জিগ্যাস করলাম কোন সাহসে ওটা হাতে পরেছে তখন নিরলজ্জের মত হাসে।

Kishenlal: তার পর ?

Jashodha: সুধু কি তাই – আমি জানি ও পয়সা চুরি করে – আমার বাজারের ৩২৫ টাকা রাখা ছিল, রান্না ঘরের তাকে – আমাকে আগ্নেস মেমসাহেব নিজে হাতে দিয়েছে সকাল বেলা। দুপুরে বাজার জাবার আগে টাকা নিতে গিয়ে দেখি ২০ টাকা কম। ও ছাড়া কে নেবে টাকা।

Kishenlal: তুমি মেমসাহেব কে বললে ?

Jashodha: কি হবে বলে ? মেমসাহেব আজকাল গুলাবির কথায় উঠে বসে – তুমি তো নিজেও জান।

Kishenlal: এ কথা মিছে বল নি – গুলাবী মেয়েটা বড় শয়তান নিক্লেছে।

Jashodha: ওই মেয়ের মনে অনেক পাপ আছে – এটা আমি আউরাত হয়ে বুঝতে পারি, তুমি পারবে না। জেমস সাহেবের দিকে ও যে নজরে তাকায় সেটা আমার ভাল লাগে না।

Kishenlal: বল কি, তুমি ঠিক দেখেছ?

Gulabi having overheard this entire conversation comes to middle of stage, sarcastically clapping her hands slowly. Her eyes and demeanour is like a angry tigress in her raw hatred towards Jasodha and Kishenlal.

Gulabi: ব্যাস ব্যাস অনেক শুনে নিয়েছি। আর মিথ্যে কথা বললে জিভ খসে যাবে।

Jashodha: কোন কথাটা মিথ্যা শুনলি গুলাবী ?

Gulabi: সব মিথ্যা – তোর সব কথা মিথ্যা বুরিয়া – আজ বাদে কাল মরতে চলেছিস, এত মিথ্যা বলতে লজ্জা করে না।

Jashodha: কি বললি চুরেল শয়তান – আমি মিথ্যা বলেছি, আমাকে লজ্জা পেতে হবে –পয়সা চুরি করবি তুই, পরের মরদের দিকে নজর করবি তুই আর লজ্জা পেতে হবে আমাকে। মনে রাখিস রাজপুত লাহু দউরচ্ছে এই শরিরে – বারাবারি করলে খুন খারাবি হয় যাবে।

Gulabi: মুখ সামলে কথা বল বুরিয়া। আমি তোর নামে নালিশ করব মেমসাহেবের কাছে – দেখব কার কথা বিশ্বাস করে – তোর না আমার।

Jashodha: হ্যা হ্যা – জা পারিস করে নে – তবে এটা জেনে রাখ তোর আসল রুপ আমি চিনে গেছি। তোর হারি আমি হাটে ভাঙব, এই আমি বলে দিলাম।

Bell rings Kishenlal brings in James and Dr. Batobal.

James: এই যে কিশেনলাল – মেমসাহেব বাড়ি আছে ?

Kishenlal: আছে সাহেব – ডেকে দেব ?

James: হ্যা ডেকে দাও – বল আমি এসেছি সাথে আমার বন্ধু কোলকাতা থেকে।

Kishenlal: আপনারা অপেক্ষা করুন – আমি মেমসাহেব কে খবর দিচ্ছি।

Exit Kishenlal & Jasodha. Enter Agnes.

James: Agnes, Let me introduce – আমার বন্ধু ডঃ শুভেন্দু বাটবাল, কলকাতার বিখ্যাত Orthopaedic surgeon.

আগ্নেস ও ডঃ বাটবালের নমস্কার বিনিময়।

James: তোমাকে না জানিয়ে ডাক্তার কে আসতে বললাম – Hope you don’t mind.

Agnes: No but I am not sick. (কিন্তু আমি তো ভালই আছি।)

James: Of course not – but – সেদিন বললে, হাটার পরে তোমার পায়ে ব্যাথা হচ্ছে।

Agnes: Oh James – I have always had that – did you really need to call a specialist from Kolkata. (সে তো আমার চিরকালের…তার কে…জন্য আবার এনা )

Dr Batobal: Let me decide আমার আসা প্রয়োজন ছিল কি না – আসুন Madame আপনার পাটা একবার examine করে দেখি।

Examination goes on for sometime with James looking on .

James: Well doctor – whats the verdict?

Dr Batobal: Before reaching any conclusions, I would like to ask you a few questions madame ? (to Agnes)

Agnes: Yes – what would you want to know doctor ?

Dr Batobal: This gold prosthetic – এই সোনার পা আপনার কত দিন পরে থাকতে হচ্ছে।

Agnes: I had the accident when I was 18 – tokhon theke porchi (তখন থেকে পরছি।)

Dr Batobal: কোনও দিন খুলতে হয় নি।

Agnes: Na never – Dr Bibbs put it on – its fixed to my bone . (না, Dr Bibbs সোনার পা আমার হারের সাথে জুরে দিয়েছিলেন – ও পা আর কনদিন খুলতে হবে না।)

Dr Batobal: ভারি সোনার পা – আপনার হাটতে কষ্ট হয় না ?

Agnes: Prothom koyek mash it was very hard – I used to cry in pain every day – slowly I have got used to it. Now I go for a walk everyday. (প্রথম কয়েক মাস খুব কষ্ট হত – রোজ ব্যাথায় কাদতাম – এখন অভ্যাস হয়ে গেছে। এখন প্রায়ে রোজ বিকেলে একবার হাঁটতে বেরোই।)

Dr Batobal: Is that so ? কোথায় হাটেন ?

Agnes: beshi dur noy – ei pasher church er bagane – or sometimes along the banks of the river. (বেশী দূর নয় – এই পাশের চার্চের বাগানে – বা – যদি মন চায়ে একটু গঙ্গার ধার দিয়ে ঘাটের দিকটা।)

Dr Batobal: হাটার পর কোন অশুবিধা হয় কি ?

Agnes: Hya – hatbar por hatu byatha hoye. Gulabi massages my knee with warm bandages to make the pain go away. ( হ্যা – হাটবার পর হাটু ব্যাথা হয় – তখন গুলাবী আমার জন্য গরম নুন জলের শেক বানিয়ে দেয় – তাতে ব্যাথা সেরে যায়ে।)

Dr Batobal: Madame I would take this very seriously । এই ব্যাথাটা আপনি গুরুত্য দিচ্ছেন না – but I suspect these are the first signs of osteoporosis. If it gets worse it may put an end to your daily walks.

Agnes: Doctor are you suggesting I wont be able to walk anymore. (এ আপনি কি বলছেন – আমি তাহলে হাটতে পারব না।)

Dr Batobal: I am afraid so madame – if the disease takes hold it will have a very severe effect on your mobility.

Agnes: James – what should I do ? (জেমস – আমি কি করব ?)

James: It sounds serious. একেবারেই ফেলে রাখা উচিত নয়। Doctor what do you suggest ?

Dr Batobal: আপনি ভয় পাবেন না – আমারা এটা প্রাথমিক অবস্থায় ধরতে পেরেছি . I suggest immediate remedial treatment.

Agnes: Amake onek oshudh khete hobe? (আমাকে কি অনেক অশুধ খেতে হবে ?)

Dr Batobal: না – দিনে একবার নেবেন – আমি অশুধ লিখে দিচ্ছি। জেমস তুমি যখন কোলকাতা আসবে আমার কাছ থেকে অশুধ নিয়ে জেও।

Agnes: Will the medicine cure my pain, doctor ? (তাতে আমি ঠিক হয় যাব।)

Dr Batobal: Yes madame you will be free from pain – হাটুর ব্যাথা থেকে চিরকালের মুক্তি।

Agnes: Chirokaler mukti ……? (চিরকালের মুক্তি……?)

Dr Batobal: হ্যা চিরকালের মুক্তি। এক গ্লাস জল হবে কি?

Doctor and James moves to front of stage. They have a private discussion that Agnes cant hear.

James: I am glad I asked you to come .

Batobal: হ্যা – ঠিক সময় diagonosis করতে পারলাম। আমি অশুধটা লিখে দিচ্ছি।

Gulabi: ডাক্তার বাবু আপনার জল। Gulabi gives doctor glass of water.

Batobal: Thank you – তোমার নাম কি ?

Gulabi: গুলাবী।

James: ওর সোনার পাটা এত ভারি তবু ওটা খলে না, ওটা খুলে অন্য পা লাগালে কেমন হয় ?

Batobal: অসম্ভব – হারের সাথে সেট করা,ওটা ওর চিরকালের সাথী।

James: চিরকালের…… ওটা যদি কেটে বাদ দেওয়া যায়……।

Batobal: খেপেছও – that’s impossible. আর দরকার নেই আমি অশুধ লিখে দিচ্ছি, the problem will go away.

James: Yes the problem will go away. Talking of problems doctor, বাড়িতে ভয়ানক ইদুরের উপদ্রব হয়েছে – আমাকে একটু ইদুর মারবার কিছু দিতে পারবে ?

Batobal: ইদুর মারবার অশুধ – Do you have anything specific in mind ?

James: Arsenic – যদি তোমার কাছে থাকে।

Batobal: আছে তোমার জন্য এক শিশি বানিয়ে রাখব – এক কাজ কর। আগ্নেসের অশুধ যেদিন নিতে আসবে সেদিন অটাও নিয়ে যেও। সাবধানে ব্যাবহার করবে কিন্তু – বাড়ির কুকুর বেরাল যেন মুখ না দেয়।

James: সে আর বলতে – আমি এই সপ্তাহেই অশুধ নিতে আসব। তোমাকে যে কি বলে ধন্যবাদ জানাই বুঝতে পারছি না।

Batobal: Don’t worry – that’s what friends are for. (Now addressing Agnes) Madame আপনি মোটেই ঘাব্রাবেন না আমি জেমস কে সব বুঝিয়ে দিয়েছি। কয়েক দিন অশুধ পরলেই আপনি সেরে উঠবেন।

Agnes: Thank you doctor – I hope you are right.

Batobal: আজ তাহলে আসি ?

Agnes: আসুন।

James: গুলাবী ডাক্তার কে সদর দরজা দেখিয়ে দাও।

Gulabi gets up to show the doctor to the door.

Dr Batobal: না থাক – তার দরকার নেই। বেরনর রাস্তা আমি নিজেই খুজে নিতে পারব।

Gulabi: না, না – দরকার নেই কেন – আপনি কষ্ট করে কোলকাতা থেকে আসলেন আর আমি এইটুকু করতে পারব না ? দিন আপনার ব্যাগটা আমি ধরছি।

Dr Batobal: এত বড় বারিতে হারিয়ে গিয়ে ভুল ঘরে ঢুকে পরব ভেবেছ?

Gulabi: এ বাড়িটা গলকধাদার মত – কিন্তু আপনি পথ হারাবেন না তা জানি – আসুন না আমার সাথে।

Exit doctor and Gulabi

Agnes: What did the doctor say? Amar ki hoeche ? (কি হয়েছ ? ডাক্তার কি বলল ?)

James: Osteoperosis – ঠিক সময় ধরা পরেছে – বেরে গেলে তোমার হাটা একেবারে বন্ধ হয় যেত।

Agnes: ekhon aar barbe na ? (এখন আর বারবে না ?)

James: No dear – but you will need to take some treatment.

Agnes: Ki rokom treatment ? (কিরকম ট্রিটমেন্ট ?)

James: রোজ একটা করে ইঞ্জেকশান – ২ মাস ধরে। আমি পরশু কোলকাতা গিয়ে তোমার অশুধ নিয়ে আসব।

Agnes: Besh tai eno – James, why are you doing all this for me ? (বেশ তাই এন – James, why are you doing all this for me ? )

James: এটা তো যে কেউ করত। You know I can do anything for you.

Agnes: If it wasn’t me but someone else – would you have done the same? (আমি না হয়ে যদি অন্য কেউ হত, তাহলেও এতটাই করতে তুমি ?)

James: I have never considered that Agnes – I don’t know.

Agnes: (starting to weep) I am sorry – I don’t want to cling on to you। kintu ki kori I feel so afraid James – amar hathta tumi dhoro please. (আমার হাতটা তুমি ধর please.)

James: কিসের ভয় – এই তো আমি তোমার হাত ধরেছি।

Agnes: Jani na keno – I am scared that you will leave me James. (জানি না কেন – আমার কেবল মনে হয় তুমি আমাক ছেরে চলে যাবে।)

James: Do not fear আগ্নেস – আমি তোমায় ফেলে যাচ্ছি না – কেদো না লক্ষ্মীটি।

( Agnes keeps on crying ) James brings out ring from pocket.

James: এই দ্যাখ তোমার জন্য কি এনেছি।

Agnes: Eta ki ? (এটা কি ?)

James: আংটি – বিয়ের আংটি – আগ্নেস – আমাদের বিয়ের আংটি – ( Puts ring on Agnes finger)

James: আগ্নেস – আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই। Will you marry me ?

Agnes: Are you proposing marriage to me – James ? (তুমি …… তুমি আমাকে বিয়ে করতে চাইছ ?)

James: হ্যা আগ্নেস – I love you.

Agnes: Ohh James – I love you – Hya ami tomake biye korbo James – I will marry you. (হ্যা আমি তোমাকে বিয়ে করব James আমি তোমাকে বিয়ে করব।)

Lights fade.

Off stage voice of church sermon pronounces James and Agnes man and wife to the tolling of church bells. The pastor may be shown and the rest may be just shadows or off stage.

Pastor: Friends, we are gathered together in the sight of God to witness and bless the joining together of James Cunningham and Agnes Crawford in Christian marriage.

Agnes, will you have James, to be your husband, to live together in holy marriage? Will you love him, comfort him, honour and keep him, in sickness and in health, and forsaking all others, be faithful to him as long as you both shall live?

Agnes: I will.

Pastor: James, will you have Agnes, to be your wife, to live together in holy marriage? Will you love her, comfort her, honour and keep her, in sickness and in health, and forsaking all others, be faithful to her as long as you both shall live?

James: I will.

Pastor: I announce to you that they are husband and wife; in the name of the Father, and of the Son, and of the Holy Spirit. Those whom God has joined together, let no one put asunder. Amen.

Church bells toll in background. Lights fade out.

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s